ঈশপের গল্প (৪৬ – ৫০)

প্রায় আড়াইশ’ গল্পের পঞ্চাশতমটি থাকছে এবারের পঞ্চকে। সমকালীন সমাজের সাথে কতটা প্রাসঙ্গিক এই গল্পগুলি সেই কৌতুহল থেকে কয়েকমাস আগে এদের ফিরে পড়তে আর সেই সাথে আমার অনুভব-এ অনুবাদ করতে শুরু করি। যত দিন গেছে তত অবাক হয়ে গেছি দেখে যে একের পর এক গল্পগুলি কি প্রবলভাবে আমাদের সময়ের কথা বলছে। এই গল্পগুলিতে যাঁরা মন্তব্য করেছেন তাঁরাও বিভিন্ন সময়ে একই অনুভব-এর কথা জানিয়েছেন। এবারের পঞ্চক-ও সে অনুভব থেকে বঞ্চিত করবে না।

অনুবাদ ইংরেজী পাঠের অনুসারী, আক্ষরিক নয়। সাথে আমার দু-এক কথা।
গল্পসূত্রঃ R. Worthington (DUKE Classics)-এর বই এবং আন্তর্জাল-এ লভ্য http://www.aesop-fable.com -এ ইংরেজী অনুবাদের ঈশপের গল্পগুলি।
গল্পক্রমঃ R. Worthington-এর বইয়ে যেমন আছে।

(৪৬)
The Crab and his Mother

কাঁকড়া আর তার মা

এক মা-কাঁকড়া এক দিন তার ছেলেকে বলল, “হ্যাঁ রে, তুই সবসময় এই রকম পাশের দিকে সরে সরে হাঁটিস কেন? সোজা হাঁটলে কত সুবিধা পেতি জানিস?” বাচ্চা কাঁকড়া বলল, “ঠিক বলেছ মা, তুমি যদি আমায় একবার দেখিয়ে দাও কি করে সোঁজা হাঁটতে হয়, আমি কথা দিচ্ছি, আমিও তার পর থেকে সোজা হেঁটে যাব।” মা-কাঁকড়া অনেক রকম করে সোজা হাঁটার চেষ্টা করল, কোন লাভ হল না। ছেলের প্রতিবাদের পাল্টা জবাব দেবার আর সাধ্য হল না তার।

প্রাচীন বচনঃ নির্দেশ দেওয়ার বদলে বরং উদাহরন দিয়ে দেখান উচিৎ।

আমি বলিঃ নিজে সন্ত্রাস আর ধ্বংসের পথ না ছেড়ে অন্যকে শান্তির পথে চলার ডাক দিলে সে ডাকে বিশ্বাসযোগ্যতা থাকে কি?

(৪৭)
The Wolf and the Shepherd

নেকড়ে আর ভেড়ার রাখাল

এক নেকড়ে এক পাল ভেড়ার পিছন পিছন ঘুরে বেড়াত। কিন্তু একটা ভেড়াকেও কোনদিন আক্রমণ করেনি। ভেড়াগুলোর রাখাল নেকড়েটাকে খুব নজরে নজরে রাখত, শত্রুকে যেমন রাখতে হয়। শেষে, দিনের পর দিন নেকড়েটা যখন কোন ভেড়াকেই এমন কি একটু ছুঁয়ে দেখারও চেষ্টা করল না, রাখালের মনে হতে লাগল নেকড়েটা তার ভেড়াগুলোকে পাহারাই দিচ্ছে। মনে হল এই নেকড়ের জন্যই তার ভেড়াদের কোন বিপদ ঘটছেনা। একদিন যখন তাকে একটা কাজে শহরে যেতে হল, সে নেকড়ের উপর-ই তার ভেড়ার পালের রক্ষার দায়িত্ব দিয়ে গেল। এইবার সুযোগ পেয়ে নেকড়ে ঝাঁপিয়ে পড়ল ভেড়াগুলোর উপর আর সেগুলোর বেশীর ভাগকেই মেরে ফেলল। শহর থেকে ফিরে রাখাল দেখল তার ভেড়ার পাল প্রায় শেষ। সে কপাল চাপড়ে বলল, “ঠিক-ই হয়েছে। আমার কাজের উপযুক্ত ফল পেয়েছি। কি করে আমি একটা নেকড়েকে বিশ্বাস করে তার হাতে আমার ভেড়াদের রেখে যেতে পারলাম?”

প্রাচীন বচনঃ শয়তান মন তার শয়তানী কাজ করেই ছাড়বে – আজ হোক আর কাল।

আমি বলিঃ প্রশ্নহীন আনুগত্য আদায় করে সঙ্গীদের ভেড়ার পাল বানিয়ে তারপর মতলব-লুকিয়ে-বিশ্বস্ত-সেজে-থাকা খুনেদের হাতে তাদের দেখভাল করার দায়িত্ব তুলে দিলে ঐ খুনেরাই সময় সুযোগমত দলকে গ্রাস করে নেয়, নেতৃত্বের তখন আর সেই বিপর্যয় আটকানোর সামর্থ্য থাকে না।

(৪৮)
The Man and the Lion

একজন মানুষ ও একটি সিংহ

একটা সিংহ আর একজন লোক একসাথে বনের মধ্য দিয়ে গল্প করতে করতে ঘুরে বেড়াচ্ছিল। ঘুরতে ঘুরতে দুজনেই যার যার শক্তি আর ক্ষমতার কথা বলে নিজেকে অপরের থেকে বড় বলে দাবী করতে লাগল। তর্ক-বিতর্ক চলতে চলতে একসময় তারা পাথরে খোদাই করা একটা মূর্তির পাশে এসে হাজির হল। মূর্তিটাতে দেখা যাচ্ছে একজন মানুষ একটা সিংহকে গলা টিপে মেরে ফেলছে। এই দেখে তর্ক করা লোকটা ঐ মূর্তির দিকে আঙ্গুল তুলে চেঁচিয়ে উঠল, “এই দেখো! দেখতে পাচ্ছ কত জোর আমাদের, এমনকি পশুদের রাজাকেও আমরা কি রকম হারিয়ে দিয়েছি!” সিংহটা তখন তাকে বলল, “মূর্তিটা ত বানিয়েছে তোমাদের মানুষদেরই কেউ। আমরা সিংহরা যদি জানতাম কি করে মূর্তি বানাতে হয়, তা হলে দেখতে ঐ মানুষটার জায়গা হয়েছে ঐ সিংহটার থাবার নীচে। ”

প্রাচীন বচনঃ গল্পে নিজেকে ততক্ষণই মহান রাখা যায় যতক্ষণ না অন্য কেউ সে গল্পটা বলে।

আমি বলিঃ যে জয়ের কথা লিখে রাখা হয়না সে জয় হারিয়ে যায়।

(৪৯)
The Ox and the Frog

এক ষাঁড় ও এক ব্যাঙ

এক ষাঁড়, এক পুকুরের ধারে জল খেতে খেতে পায়ের নীচে কিছু বাচ্ছা ব্যাঙকে চাপা দিয়ে চলে গেল। একটা ব্যাঙ থেঁতলে গিয়ে মরে গেল। একটু পরে ব্যাঙগুলোর মা এসে তাদের কাছে জানতে চাইল কি করে ঐ ব্যাঙটার অমন দশা হল। ব্যাঙরা বলল, “মা গো মা, একটু আগেই এখান দিয়ে একটা ইয়াব্বড় জন্তু চলে গেছে। বিশাল বিশাল চারটে পা তার। ঐ রকম একটা পায়ের ভীষণ শক্ত খুরের নীচে চ্যাপ্টা হয়ে গিয়ে এ বেচারী মারা গেছে।” মা-ব্যাঙ তখন পেট-ভর্তি হাওয়া টেনে নিয়ে নিজেকে ভাল করে ফুলিয়ে বলল, “কত বড় সে জন্তুটা, এত বড়?” তাই দেখে তার এক ছেলে তাকে বলল, “মা, ওরকম হাওয়া-ভরা হয়ে ফুলে ওঠার কোন দরকার নেই। যা বলছি শোনো, রাগ কোরো না। এই রকম হাওয়া টেনে ফুলতে থাকলে, আমার কোন সন্দেহ নেই যে ঐ দানবের মত জন্তুটার সমান হওয়ার বদলে খুব তাড়াতাড়ি-ই তুমি পেট ফেটে মারা পড়বে। ”

প্রাচীন বচনঃ যা অসম্ভব তা পাওয়ার আশা করার কোন অর্থ হয়না, তার জন্য চেষ্টা করার ও তাই কোন সার্থকতা নেই।

আমি বলিঃ যে সব নিজের ঢাক পেটান লোকেরা নিজেদের ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে মহান করে দেখাতে থাকে তারা বোঝে না যে ঐ করতে গিয়ে তারা মহান ত হয়ই না বরং একসময় নিজেদের আরো খেলো করে ফেলে।

(৫০)
The Birds, the Beasts, and the Bat

পাখীরা, জন্তুরা এবং বাদুর

কোন এক সময় পাখীদের সাথে জন্তুদের জোর লড়াই চলছিল। একবার পাখীরা জিতছিল, একবার জন্তুরা। এক বাদুড়, যুদ্ধের ফল ঠিক কি হতে চলেছে বুঝতে না পারায় যখন যেদিকটা বেশী শক্তিশালী মনে হচ্ছিল সেই দিকে হাজির থাকছিল। এক সময় যুদ্ধ শেষ হয়ে শান্তি এল। এদিকে যুদ্ধের সময় বাদুর-এর ছল-চাতুরি সবার-ই নজরে পড়েছিল। এবার সবাই মিলে তাকে শাস্তি দিল। দিনের আলোয় তার ঘর থেকে বের হওয়া নিষেধ হয়ে গেল। সেই থেকে বাদুড় সারাদিন কোন অন্ধকার কোণায় গিয়ে লুকিয়ে থাকে আর রাতের আকাশে উড়ে বেড়ায় একেবারে একা একা।

প্রাচীন বচনঃ ছল-চাতুরি করে সব দিক রাখতে গেলে শেষ পর্যন্ত কোথাও কারও সাথে আর জায়গা মেলে না।

আমি বলিঃ আন্দোলনের পর আন্দোলনে যারা ক্রমাগত অবস্থান বদল করে, একটা সময় সমাজে কারো কাছে তাদের আর কোন গ্রহণযোগ্যতা থাকে না।